কে উঠে ডাকি , প্রেম ২৯৯ | Ke uthe daki

কে উঠে ডাকি , প্রেম ২৯৯ | Ke uthe daki রবীন্দ্রসংগীত’ বলতে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর কর্তৃক রচিত এবং রবীন্দ্রনাথ বা তার নতুনদাদা জ্যোতিরিন্দ্রনাথ ঠাকুর কর্তৃক সুরারোপিত গানগুলিকেই বোঝায়।

 

কে উঠে ডাকি , প্রেম ২৯৯ | Ke uthe daki

রাগ: পরজ

তাল: একতাল

রচনাকাল (বঙ্গাব্দ): ২২ কার্তিক, ১৩০২

 

কে উঠে ডাকি , প্রেম ২৯৯ | Ke uthe daki
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর [ Rabindranath Tagore ]

কে উঠে ডাকি:

 

কে উঠে ডাকি মম বক্ষোনীড়ে থাকি

করুণ মধুর অধীর তানে বিরহবিধুর পাখি॥

নিবিড় ছায়া গহন মায়া, পল্লবঘন নির্জন বন–

শান্ত পবনে কুঞ্জভবনে কে জাগে একাকী॥

যামিনী বিভোরা নিদ্রাঘনঘোরা–

ঘন তমালশাখা নিদ্রাঞ্জন-মাখা।

স্তিমিত তারা চেতনহারা, পাণ্ডু গগন তন্দ্রামগন

চন্দ্র শ্রান্ত দিকভ্রান্ত নিদ্রালস-আঁখি।

 

কে উঠে ডাকি , প্রেম ২৯৯ | Ke uthe daki
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর [ Rabindranath Tagore ]

 

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর কর্তৃক রচিত মোট গানের সংখ্যা ২২৩২।তার গানের কথায় উপনিষদ্‌, সংস্কৃত সাহিত্য, বৈষ্ণব সাহিত্য ও বাউল দর্শনের প্রভাব সুস্পষ্ট। অন্যদিকে তার গানের সুরে ভারতীয় শাস্ত্রীয় সংগীতের (হিন্দুস্তানি ও কর্ণাটকি উভয় প্রকার) ধ্রুপদ, খেয়াল, ঠুমরি, টপ্পা, তরানা, ভজন ইত্যাদি ধারার সুর এবং সেই সঙ্গে বাংলার লোকসঙ্গীত, কীর্তন, রামপ্রসাদী, পাশ্চাত্য ধ্রুপদি সঙ্গীত ও পাশ্চাত্য লোকগীতির প্রভাব লক্ষ্য করা যায়।

 

রবীন্দ্রনাথের সকল গান গীতবিতান নামক সংকলন গ্রন্থে সংকলিত হয়েছে। উক্ত গ্রন্থের ১ম ও ২য় খণ্ডে রবীন্দ্রনাথ নিজেই তার গানগুলিকে ‘পূজা’, ‘স্বদেশ’, ‘প্রেম’, ‘প্রকৃতি’, ‘বিচিত্র’ও ‘আনুষ্ঠানিক’ – এই ছয়টি পর্যায়ে বিন্যস্ত করেছিলেন। তার মৃত্যুর পর গীতবিতান গ্রন্থের প্রথম দুই খণ্ডে অসংকলিত গানগুলি নিয়ে ১৯৫০ সালে উক্ত গ্রন্থের ৩য় খণ্ড প্রকাশিত হয়। এই খণ্ডে প্রকাশিত গানগুলি ‘গীতিনাট্য’, ‘নৃত্যনাট্য’, ‘ভানুসিংহ ঠাকুরের পদাবলী’, ‘নাট্যগীতি’, ‘জাতীয় সংগীত’, ‘পূজা ও প্রার্থনা’, ‘আনুষ্ঠানিক সংগীত, ‘প্রেম ও প্রকৃতি’ ইত্যাদি পর্যায়ে বিন্যস্ত।

 

কে উঠে ডাকি , প্রেম ২৯৯ | Ke uthe daki
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর [ Rabindranath Tagore ]

আরও দেখুনঃ

মন্তব্য করুন