খেয়া ১৯১০ | কাব্যগ্রন্থ | কবিতা সূচি | রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

খেয়া হল রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর কর্ত্তৃক রচিত একটি বাংলা কাব্যগ্রন্থ।এটি ১৯০৬ সালে প্রকাশিত হয়।এটি রবীন্দ্রনাথের কাব্য রচনার “অন্তবর্তী পর্ব”-এর অন্তর্গত একটি উল্লেখযোগ্য সৃষ্টি। এই কাব্যের এগারোটি কবিতা রবীন্দ্রনাথ গীতাঞ্জলির ইংরেজি অনুবাদ সং অফারিংসে অন্তর্ভুক্ত করেছেন।

 

খেয়া ১৯১০ | কাব্যগ্রন্থ | কবিতা সূচি | রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর [ Rabindranath Tagore ]

 

রবীন্দ্রনাথ তাঁর “খেয়া” কাব্যগ্রন্থটি ভারতীয় বিজ্ঞানী জগদীশ চন্দ্র বসুকে উৎসর্গ করেন। “খে’য়া” কাব্যে বিষাদ ও ক্লান্তির সুর প্রাধান্য পায়। মানবজীবনের সুখ-দুঃখ এবং আশা-আকাঙ্ক্ষার কথা ধ্বনিত হয়েছে। এতে আধ্যাত্মিকতার মূর্ছনাও পরিলক্ষিত হয়।

 

খেয়া ১৯১০ | কাব্যগ্রন্থ | কবিতা সূচি | রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর [ Rabindranath Tagore ]

খেয়া কবিতা সূচিঃ

 

শেষ খে’য়া

ঘাটের পথে

ঘাটে

শুভক্ষণ

ত্যাগ

আগমন

দুঃখমূর্তি

মুক্তিপাশ

প্রভাতে

দান

বালিকা বধূ

অনাহত

বাঁশি

অনাবশ্যক

অবারিত

গোধূলিলগ্ন

লীলা

মেঘ

নিরুদ্যম

কৃপণ

কুয়ার ধারে

জাগরণ

ফুল ফোটানো

 

খেয়া ১৯১০ | কাব্যগ্রন্থ | কবিতা সূচি | রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর [ Rabindranath Tagore ]

হার

বন্দী

পথিক

মিলন

বিচ্ছেদ

বিকাশ

সীমা

ভার

টিকা

বৈশাখে

বিদায়

পথের শেষ

নীড় ও আকাশ

সমুদ্রে

দিনশেষ

সমাপ্তি

কোকিল

দিঘি

ঝড়

প্রতীক্ষা

গান শোনা

জাগরণ jagoron

হারাধন

চাঞ্চল্য

প্রচ্ছন্ন

অনুমান

বর্ষাপ্রভাত

বর্ষাসন্ধ্যা

সব-পেয়েছি’র দেশ

সার্থক নৈরাশ্য

প্রার্থনা

খেয়া

 

খেয়া ১৯১০ | কাব্যগ্রন্থ | কবিতা সূচি | রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর [ Rabindranath Tagore ]

 

আরও পড়ুনঃ

মন্তব্য করুন