তোমার শেষের গানের রেশ , প্রেম ২৫ | Tomar sesher ganer resh

তোমার শেষের গানের রেশ , প্রেম ২৫ | Tomar sesher ganer resh  রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ১৯১৫টি গান রচনা করেছিলেন।ধ্রুপদি ভারতীয় সংগীত, বাংলা লোকসংগীত ও ইউরোপীয় সংগীতের ধারা তিনটিকে আত্মস্থ করে তিনি একটি স্বকীয় সুরশৈলীর জন্ম দেন।রবীন্দ্রনাথ তার বহু কবিতাকে গানে রূপান্তরিত করেছিলেন।

 

তোমার শেষের গানের রেশ , প্রেম ২৫ | Tomar sesher ganer resh

রাগ: ভৈরবী

তাল: দাদরা

রচনাকাল (বঙ্গাব্দ): ২৬ ফাল্গুন, ১৩২৯

রচনাকাল (খৃষ্টাব্দ): ১০ মার্চ, ১৯২৩

 

তোমার শেষের গানের রেশ , প্রেম ২৫ | Tomar sesher ganer resh
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর [ Rabindranath Tagore ]

তোমার শেষের গানের রেশ:

তোমার শেষের গানের রেশ নিয়ে কানে চলে এসেছি।

কেউ কি তা জানে॥

তোমার আছে গানে গানে গাওয়া,

আমার কেবল চোখে চোখে চাওয়া–

মনে মনে মনের কথাখানি বলে এসেছি কেউ কি তা জানে॥

ওদের নেশা তখন ধরে নাই,

রঙিন রসে প্যালা ভরে নাই।

তখনো তো কতই আনাগোনা,

নতুন লোকের নতুন চেনাশোনা–

ফিরে ফিরে ফিরে-আসার আশা দ’লে এসেছি কেউ কি তা জানে॥

 

তোমার শেষের গানের রেশ , প্রেম ২৫ | Tomar sesher ganer resh
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর [ Rabindranath Tagore ]

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর কলকাতার এক ধনাঢ্য ও সংস্কৃতিবান ব্রাহ্ম পিরালী ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।বাল্যকালে প্রথাগত বিদ্যালয়-শিক্ষা তিনি গ্রহণ করেননি; গৃহশিক্ষক রেখে বাড়িতেই তার শিক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছিল।আট বছর বয়সে তিনি কবিতা লেখা শুরু করেন।১৮৭৪ সালে তত্ত্ববোধিনী পত্রিকা-এ তার “অভিলাষ” কবিতাটি প্রকাশিত হয়। এটিই ছিল তার প্রথম প্রকাশিত রচনা। ১৮৭৮ সালে মাত্র সতেরো বছর বয়সে রবীন্দ্রনাথ প্রথমবার ইংল্যান্ডে যান।১৮৮৩ সালে মৃণালিনী দেবীর সঙ্গে তার বিবাহ হয়। ১৮৯০ সাল থেকে রবীন্দ্রনাথ পূর্ববঙ্গের শিলাইদহের জমিদারি এস্টেটে বসবাস শুরু করেন।

 

তোমার শেষের গানের রেশ , প্রেম ২৫ | Tomar sesher ganer resh
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর [ Rabindranath Tagore ]
আরও দেখুনঃ

মন্তব্য করুন