নিত্য নব সত্য তব , পূজা ৩৯০ | Nitto nobo sotto tobo

নিত্য নব সত্য তব , পূজা ৩৯০ | Nitto nobo sotto tobo  রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ১৯১৫টি গান রচনা করেছিলেন।ধ্রুপদি ভারতীয় সংগীত, বাংলা লোকসংগীত ও ইউরোপীয় সংগীতের ধারা তিনটিকে আত্মস্থ করে তিনি একটি স্বকীয় সুরশৈলীর জন্ম দেন।রবীন্দ্রনাথ তার বহু কবিতাকে গানে রূপান্তরিত করেছিলেন।

 

নিত্য নব সত্য তব , পূজা ৩৯০ | Nitto nobo sotto tobo

রাগ: শুক্ল বিলাবল

তাল: ঝাঁপতাল

রচনাকাল (বঙ্গাব্দ): ১৩০১

 

নিত্য নব সত্য তব , পূজা ৩৯০ | Nitto nobo sotto tobo
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর [ Rabindranath Tagore ]

নিত্য নব সত্য তব:

 

নিত্য নব সত্য তব শুভ্র আলোকময়

পরিপূর্ণ জ্ঞানময়

কবে হবে বিভাসিত মম চিত্ত-আকাশে?।

রয়েছি বসি দীর্ঘনিশি

চাহিয়া উদয়দিশি

ঊর্ধ্বমুখে করপুটে–

নবসুখ-নবপ্রাণ-নবদিবা-আশে ॥

কী দেখিব, কী জানিব,

না জানি সে কী আনন্দ–

নূতন আলোক আপন মনোমাঝে।

সে আলোকে মহাসুখে

আপন আলয়মুখে

চলে যাব গান গাহি–

কে রহিবে আর দূর পরবাসে ॥

 

নিত্য নব সত্য তব , পূজা ৩৯০ | Nitto nobo sotto tobo
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর [ Rabindranath Tagore ]

১৯০০ সালে শান্তিনিকেতনে বসবাস শুরু করার পর থেকে রবীন্দ্রসংগীত রচনার তৃতীয় পর্বের সূচনা ঘটে।এই সময় রবীন্দ্রনাথ বাউল গানের সুর ও ভাব তার নিজের গানের অঙ্গীভূত করেন।প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর রবীন্দ্রনাথের গান রচনার চতুর্থ পর্বের সূচনা হয়। কবির এই সময়কার গানের বৈশিষ্ট্য ছিল নতুন নতুন ঠাটের প্রয়োগ এবং বিচিত্র ও দুরূহ সুরসৃষ্টি। তার রচিত সকল গান সংকলিত হয়েছে গীতবিতান গ্রন্থে। এই গ্রন্থের “পূজা”, “প্রেম”, “প্রকৃতি”, “স্বদেশ”, “আনুষ্ঠানিক” ও “বিচিত্র” পর্যায়ে মোট দেড় হাজার গান সংকলিত হয়। পরে গীতিনাট্য, নৃত্যনাট্য, নাটক, কাব্যগ্রন্থ ও অন্যান্য সংকলন গ্রন্থ থেকে বহু গান এই বইতে সংকলিত হয়েছিল।

 

নিত্য নব সত্য তব , পূজা ৩৯০ | Nitto nobo sotto tobo
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর [ Rabindranath Tagore ]
আরও দেখুনঃ

মন্তব্য করুন