প্রতিদিন আমি , পূজা ১৭৯ | Protidin ami

প্রতিদিন আমি , পূজা ১৭৯ | Protidin ami  রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ১৯১৫টি গান রচনা করেছিলেন।ধ্রুপদি ভারতীয় সংগীত, বাংলা লোকসংগীত ও ইউরোপীয় সংগীতের ধারা তিনটিকে আত্মস্থ করে তিনি একটি স্বকীয় সুরশৈলীর জন্ম দেন।রবীন্দ্রনাথ তার বহু কবিতাকে গানে রূপান্তরিত করেছিলেন।

 

প্রতিদিন আমি , পূজা ১৭৯ | Protidin ami

রাগ: কাফি

তাল: ঝাঁপতাল

রচনাকাল (বঙ্গাব্দ): ১৩০৭

 

প্রতিদিন আমি , পূজা ১৭৯ | Protidin ami
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর [ Rabindranath Tagore ]

প্রতিদিন আমি:

 

প্রতিদিন আমি হে জীবনস্বামী,

দাঁড়াব তোমারি সম্মুখে।

করি জোড়কর, হে ভুবনেশ্বর,

দাঁড়াব তোমারি সম্মুখে।

তোমার অপার আকাশের তলে

বিজনে বিরলে হে–

নম্র হৃদয়ে নয়নের জলে

দাঁড়াব তোমারি সম্মুখে।

তোমার বিচিত্র এ ভবসংসারে

কর্মপারাবারপারে হে,

নিখিলজগৎজনের মাঝারে

দাঁড়াব তোমারি সম্মুখে।

তোমার এ ভবে মোর কাজ যবে

সমাপন হবে হে,

ওগো রাজরাজ, একাকী নীরবে

দাঁড়াব তোমারি সম্মুখে।

 

প্রতিদিন আমি , পূজা ১৭৯ | Protidin ami
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর [ Rabindranath Tagore ]

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর কর্তৃক রচিত মোট গানের সংখ্যা ২২৩২।তার গানের কথায় উপনিষদ্‌, সংস্কৃত সাহিত্য, বৈষ্ণব সাহিত্য ও বাউল দর্শনের প্রভাব সুস্পষ্ট। অন্যদিকে তার গানের সুরে ভারতীয় শাস্ত্রীয় সংগীতের (হিন্দুস্তানি ও কর্ণাটকি উভয় প্রকার) ধ্রুপদ, খেয়াল, ঠুমরি, টপ্পা, তরানা, ভজন ইত্যাদি ধারার সুর এবং সেই সঙ্গে বাংলার লোকসঙ্গীত, কীর্তন, রামপ্রসাদী, পাশ্চাত্য ধ্রুপদি সঙ্গীত ও পাশ্চাত্য লোকগীতির প্রভাব লক্ষ্য করা যায়।

 

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর কলকাতার এক ধনাঢ্য ও সংস্কৃতিবান ব্রাহ্ম পিরালী ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।বাল্যকালে প্রথাগত বিদ্যালয়-শিক্ষা তিনি গ্রহণ করেননি; গৃহশিক্ষক রেখে বাড়িতেই তার শিক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছিল।আট বছর বয়সে তিনি কবিতা লেখা শুরু করেন।

 

প্রতিদিন আমি , পূজা ১৭৯ | Protidin ami
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর [ Rabindranath Tagore ]
আরও দেখুনঃ

মন্তব্য করুন