ভগ্নহৃদয় ষড়্বিংশ সর্গ bhagno hriday sorobingso sorgo [ কবিতা ]- রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

ভগ্নহৃদয় ষড়্বিংশ সর্গ bhagno hriday sorobingso sorgo কবিতা

– রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

কাব্যগ্রন্থ : ভগ্নহৃদয়

কবিতার শিরোনামঃ ভগ্নহৃদয় ষড়্‌বিংশ সর্গ

ভগ্নহৃদয় ষড়্‌বিংশ সর্গ bhagno hriday sorobingso sorgo কবিতা- রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

ভগ্নহৃদয় ষড়্বিংশ সর্গ bhagno hriday sorobingso sorgo কবিতা- রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

নলিনী
আজ তার সাথে দেখা হ’ল,
মুখ ফিরাইয়া চ’লে গেল!
হা অদৃষ্ট, কাল মোরে হেরিয়া যে জন
নলিনী নলিনী বলি হ’ত অচেতন,
নিমেষ ভুলিত আঁখি, পুরিত না আশ–
আমার সৌন্দর্য্যরাশি করিত যে গ্রাস,
মোর রাঙ্গা চরণের ধূলি হইবার
হৃদয়ের একমাত্র সাধ ছিল যার,
ধূলিতে যে পদচিহ্ন করিত চুম্বন,
মুখ ফিরাইয়া আজ গেল সেই জন!
আঁখি পিপাসা তার    হৃদয়ের আশা তার
নলিনীরে দেখে সেও ফিরালে নয়ন!
ভগ্নহৃদয় ষড়্‌বিংশ সর্গ bhagno hriday sorobingso sorgo কবিতা- রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর [ Rabindranath Tagore ]
পাশ দিয়ে চ’লে গেল স্পর্দ্ধিতগমন?
বিশ্বাসঘাতক যদি কাল পুন আসে
নলিনী নলিনী বলি   ফিরে পাশে পাশে,
ভালবাসা ভালবাসা করে দিন রাত,
তাহার পানে কি আর  ফিরে চাই একবার!
করি না কি বজ্রসম কটাক্ষনিপাত!
হাসির ছুরিকা দিয়ে বিঁধি তার মন
দারুণ ঘৃণার বিষে করি অচেতন!
ভিখারী বালক সেই    দিবস রজনী যেই
একটি হাসির তরে ছিল মুখ চেয়ে,
একটি ইঙ্গিত পেলে আসিত যে ধেয়ে,
আজ মোরে — নলিনীরে– হেরি সেই জন
চ’লে গেল একেবারে ফিরায়ে নয়ন!
যেন আজ, আমি রে নলিনী নই আর–
কাল যাহা ছিল আজ কিছু নাই তার!
এ হৃদে আঘাত দিবে মনে করে সে কি!
সে যদি ফিরে না চায়,   সে যদি চলিয়া যায়,
তাহা হ’লে নলিনী এ কেঁদে মরিবে কি!
এই যে উড়াই ধূলা চরণের ঘায়
বাযুভরে এও ত পশ্চাতে চ’লে যায়,
তাই নলিনীর আঁখি   অশ্রু বরষিবে না কি!
ভগ্নহৃদয় ষড়্‌বিংশ সর্গ bhagno hriday sorobingso sorgo কবিতা- রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
হা কপাল, এও সে কি ছিল মনে ক’রে
কথা না কহিয়া সেও ব্যথা দিবে মোরে!
এ যে হাসিবার কথা–   সেও মোরে দিবে ব্যথা,
কাল যারে নিতান্ত করেছি অবহেলা,
কৃপা ক’রে দেখিতাম যার প্রেমখেলা,
সেও আজ ভাবিয়াছে ব্যথিবে এ মন
শুধু কথা না কহিয়া, ফিরায়ে নয়ন!
Amar Rabindranath Logo
আরও পড়ুনঃ

মন্তব্য করুন