হৃদয়ে তোমার দয়া , পূজা ১২১ | Hridoye tomar doya

হৃদয়ে তোমার দয়া , পূজা ১২১ | Hridoye tomar doya  রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর কলকাতার এক ধনাঢ্য ও সংস্কৃতিবান ব্রাহ্ম পিরালী ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।বাল্যকালে প্রথাগত বিদ্যালয়-শিক্ষা তিনি গ্রহণ করেননি; গৃহশিক্ষক রেখে বাড়িতেই তার শিক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছিল।

 

হৃদয়ে তোমার দয়া , পূজা ১২১ | Hridoye tomar doya

রাগ: পরজ

তাল: ত্রিতাল

রচনাকাল (বঙ্গাব্দ): ১৩১৬

 

হৃদয়ে তোমার দয়া , পূজা ১২১ | Hridoye tomar doya
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর [ Rabindranath Tagore ]

হৃদয়ে তোমার দয়া:

হৃদয়ে তোমার দয়া যেন পাই।

সংসারে যা দিবে মানিব তাই,

হৃদয়ে তোমায় যেন পাই ॥

তব দয়া জাগিবে স্মরণে

নিশিদিন জীবনে মরণে,

দুঃখে সুখে সম্পদে বিপদে তোমারি দয়া-পানে চাই–

তোমারি দয়া যেন পাই ॥

তব দয়া শান্তির নীরে অন্তরে নামিবে ধীরে।

তব দয়া মঙ্গল-আলো

জীবন-আঁধারে জ্বালো–

প্রেমভক্তি মম সকল শক্তি মম তোমারি দয়ারূপে পাই,

আমার ব’লে কিছু নাই ॥

 

হৃদয়ে তোমার দয়া , পূজা ১২১ | Hridoye tomar doya
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর [ Rabindranath Tagore ]

আট বছর বয়সে তিনি কবিতা লেখা শুরু করেন।১৮৭৪ সালে তত্ত্ববোধিনী পত্রিকা-এ তার “অভিলাষ” কবিতাটি প্রকাশিত হয়। এটিই ছিল তার প্রথম প্রকাশিত রচনা। ১৮৭৮ সালে মাত্র সতেরো বছর বয়সে রবীন্দ্রনাথ প্রথমবার ইংল্যান্ডে যান।১৮৮৩ সালে মৃণালিনী দেবীর সঙ্গে তার বিবাহ হয়। ১৮৯০ সাল থেকে রবীন্দ্রনাথ পূর্ববঙ্গের শিলাইদহের জমিদারি এস্টেটে বসবাস শুরু করেন। ১৯০১ সালে তিনি পশ্চিমবঙ্গের শান্তিনিকেতনে ব্রহ্মচর্যাশ্রম প্রতিষ্ঠা করেন এবং সেখানেই পাকাপাকিভাবে বসবাস শুরু করেন। ১৯০২ সালে তার পত্নীবিয়োগ হয়।

 

হৃদয়ে তোমার দয়া , পূজা ১২১ | Hridoye tomar doya
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর [ Rabindranath Tagore ]
আরও দেখুনঃ

মন্তব্য করুন